• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ২৯ নভেম্বর, ২০২২
সর্বশেষ আপডেট : ২৯ নভেম্বর, ২০২২
Designed by Nagorikit.com

লালমাইয়ে সম্পত্তি বিরোধের জেরে প্রবাসীর পিতা ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধকে মারধর; থানায় অভিযোগ

কুমিল্লা জার্নাল

গাজী মামুন : লালমাই, কুমিল্লা।

 

লালমাই উপজেলার ভূলইন দক্ষিণ ইউনিয়নের যাদবপুর গ্রামের হাজী তোরাব আলীর ছেলে মোখলেছুর রহমান এর ভোগদখলীয় সম্পত্তির উপর জোরপূর্বক ঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে একই গ্রামের ওমর আলী এবং তাঁর তিন ছেলে মোঃ সফিউল্লাহ, আনোয়ার হোসেন ও দেলোয়ার হোসেন সহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে।

 

সম্পত্তি বিরোধের জেরে গত রবিবার (২৭ নভেম্বর) ওমর আলী ও ছেলেরা ভুক্তভোগী মোখলেছুর রহমানের নিজ দখলীয় সম্পত্তির উপর জোরপূর্বক একটি একচালা টিনের ঘর নির্মাণ করে। এ ব্যাপারে মোখলেছুর রহমান বাদী হয়ে লালমাই থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।

 

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ঘটনার পরদিন সোমবার (২৮ নভেম্বর) সকাল অনুমান ৭ টা ৩০ মিনিটের দিকে মোখলেছুর রহমান স্থানীয় সাত্তার মিয়ার চা দোকানের সামনে বিবাদীগণের কাছ থেকে অগোচরে জোরপূর্বক ঘর নির্মাণের বিষয়ে জানতে চাইলে পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী ওমর আলী ও তাঁর ছেলেরা মোখলেছুর রহমানের উপর আক্রমণ করে। এতে মোখলেছুর রহমান আহত হয়।

 

জানতে চাইলে ভুক্তভোগী মোখলেছুর রহমান বলেন, “বড় যাদবপুর মৌজার বিএস ৮০৩ দাগে ১০ শতক আমাদের ভোগদখলীয় ভিটা ভূমি নিজেদের দখলে নিতে ওমর আলী ও তাঁর ছেলেরা আমাদের অজান্তে জোরপূর্বক একটি একচালা টিনের ঘর তৈরি করে। ঘটনার দিন সকালে এ বিষয়টি জিজ্ঞেস করলে ক্ষিপ্ত হয়ে ওমর আলীর ছেলে মোঃ সফিউল্লাহ দোকান থেকে ধারালো ছুরি এনে তা দিয়ে আমার আঙুলে পোঁচ মারে। পরবর্তীতে তাঁর সহযোগীরাও আমার উপর কিল-ঘুষি মারতে থাকে। পরে স্থানীয়দের সহযোগিতায় লাকসাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নেই। তাদের জোরপূর্বক দখলচেষ্টার কাজে বাঁধা দিলে আনোয়ার হোসেন এবং তাঁর ভাইয়েরা আমাকে হত্যা করে ফেলবে বলে প্রকাশ্যে হুমকি দেয়। আমার দুই ছেলে বর্তমানে প্রবাসে রয়েছে। তাই আমি এবং আমার পরিবার প্রশাসনের কাছে জীবনের নিরাপত্তা ও সুষ্ঠু বিচার প্রার্থনা করছি।”

 

ঘটনার বিষয়ে সংবাদ সংগ্রহে গেলে অভিযুক্ত আনোয়ার হোসেন সাংবাদিকদের কর্তব্য কাজে বাঁধা প্রদান করেন এবং সাংবাদিকদের সামনেই মোখলেছুর রহমানকে গাছের সাথে আছড়িয়ে মারবে বলে হুমকি প্রদান করেন।

 

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা যায়, আনোয়ার হোসেন আগ থেকেই উশৃংখল প্রকৃতির লোক এবং সে সবসময়ই বিভিন্ন জায়গায় মারামারি, ঝগড়া-বিবাদে লেগে থাকে।

 

এ ব্যাপারে লালমাই থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আইয়ুব বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন

  • কুমিল্লা এর আরও খবর