• ঢাকা
  • রবিবার, ১৬ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ২রা আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
প্রকাশিত: ১৫ এপ্রিল, ২০২২
সর্বশেষ আপডেট : ১৫ এপ্রিল, ২০২২
Designed by Nagorikit.com

লালমাইয়ের বাগমারা বাজারস্থ গ্লোবাল টাওয়ার থেকে এক নারীর মরদেহ উদ্ধার

কুমিল্লা জার্নাল

গাজী মামুন: লালমাই, কুমিল্লা

 

কুমিল্লার লালমাই উপজেলার বাগমারা বাজারস্থ গ্লোবাল টাওয়ারের আবাসিক প্ল্যাটে শাহনাজ আক্তার (২০) নামে এক প্রবাসীর স্ত্রী আত্মহত্যা করেছে।

 

নিহত শাহনাজ আক্তার উপজেলার বাকই উত্তর ইউনিয়নের কাপাশতলা গ্রামের আবুল হোসেনের মেয়ে ও কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার সৌদি প্রবাসী এনামুল হকের স্ত্রী।

 

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, নিহত শাহনাজ কিছুদিন পূর্বে পারিবারিকভাবেই নিজের পছন্দের ছেলেকে বিয়ে করেন। স্বামী প্রবাসে থাকায় বিয়ের পর থেকে নিজ পরিবারের সাথেই বাগমারা বাজারের গ্লোবাল টাওয়ারে ভাড়া বাসায় থাকতেন।

 

প্রতিদিনের মতো শুক্রবার (১৫ এপ্রিল) সকাল থেকে শাহনাজ’কে ডাকাডাকি করেও তার রুম থেকে কোনো সাড়া শব্দ না পেয়ে থানায় খবর দেয় পরিবার।

 

খবর পেয়ে লালমাই থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ আইয়ুবের নির্দেশে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে যান এসআই প্রদ্যুৎ। পরে রাজনৈতিক ও পারিবারিক ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করলে নিজ শয়ন কক্ষের সিলিং ফ্যানের সাথে গলায় ফাঁস দেয়া শাহনাজের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পান তারা।

 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে নিহতের পিতা আবুল হোসেন জানান, মেয়ে সম্পর্ক করে বিয়ে করেছে যে বেশিদিন হয়নি। স্বামী বিদেশ থাকার সুবাদে বিয়ে পর থেকে আমাদের সাথেই থাকছে সে। একই প্ল্যাটে বসবাস হলেও সে আলাদা রুমেই থাকতো। তার সাথে পরিবারের কারও কোনো কথা কাটাকাটিও হয় নি। হঠাৎ সে কি কারণে আত্মহত্যা করলো তা বুঝতে পারছি না। গত কয়েকদিন ধরে শাহনাজের ব্যবহৃত মোবাইলটি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আমার ছেলে সজীবের স্ত্রীর মোবাইল দিয়ে স্বামীর সাথে কথা বলতো সে। তার স্বামীর সাথে কোনো বিষয়ে কথা-কাটাকাটি হয়েছে কিনা তা বলতে পারছি না।

 

লালমাই থানার এসআই প্রদ্যুৎ জানান, পরিবারের ফোন পেয়ে দুপুর সাড়ে তিনটার দিকে আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে শাহনাজের শয়ন কক্ষের দরজা বন্ধ অবস্থায় দেখতে পাই। এমতাবস্থায় কয়েকজন গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও নিহতের পরিবারের উপস্থিতিতে দরজা ভেঙ্গে ভিতরে প্রবেশ করেই ঝুলন্ত লাশ দেখতে পাই। সাদা সুতির শাড়ী গলায় পেঁচিয়ে সিলিং ফ্যানের সাথে ঝুলে আছে সে। পরে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। প্রাথমিকভাবে আত্মহত্যার কোনো কারণ জানা যায় নি। তদন্তের রিপোর্ট আসলে আত্মহত্যার রহস্য উদঘাটন করা যাবে।

 

লালমাই থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আইয়ুব জানান, লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে আত্মহত্যার কারণ জানা যায়নি। নিহতের পিতার তথ্যের ভিত্তিতে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আরও পড়ুন

  • কুমিল্লা এর আরও খবর